শ্যাম্পু তৈরি করুন নিজেই প্রকৃৃতিক উপাদিন দিয়ে ভাল ফল পাবেন

Posted on : June 16, 2018 | post in : Health,Sex Tips |Leave a reply |

শ্যাম্পু তৈরি করুন এখন আপনি নিজেই প্রকৃৃতিক সব উপাদান দিয়ে ৷

শ্যাম্পু তৈরি নিজেই

কীভাবে তৈরি করবেন ডিমের শ্যাম্পু

প্রথম পদ্ধতি :

>অলিভ অয়েল- ১ চা চামচ

>লেবুর রস- ১ চা চামচ

>মাইল্ড শ্যাম্পু- ১ টেবিল চামচ(বেবি শ্যাম্পু)

>পানি- আধা কাপ

সবগুলো উপকরণ একসাথে মিশিয়ে নিয়ে মসৃণ না হওয়া পর্যন্ত ব্লেন্ড করতে হবে। তারপর চুলে যেভাবে শ্যাম্পু করা হয় ঠিক সেভাবেই এটি ব্যবহার করতে হবে। এখানে যতটুকু পরিমাণ দেয়া হল তা মিডিয়াম লম্বা চুলে একবার ব্যবহারের জন্য প্রযোজ্য। যদি আপনার চুল খুব বেশি লম্বা হয় তবে সবগুলো উপাদানই কিছু পরিমান বেশি নিয়ে বানাতে হবে। আর যদি তৈরি করা এই শ্যাম্পু বাড়তি থেকে যায় তবে তা ফ্রীজে রেখে ৩৬ ঘণ্টার মাঝে ব্যবহার করলেই হবে। এই শ্যাম্পু যাদের চুল ক্ষতিগ্রস্ত ও রুক্ষ চুল বিশেষ করে যাদের চুল বেশি সূর্যের আলোর দ্বারা ক্ষতিগ্রস্ত তাদের জন্য প্রযোজ্য।

দ্বিতীয় পদ্ধতি

>ডিম- ১টি

>মাইল্ড শ্যাম্পু- ৩ টেবিল চামচ (বেবি শ্যাম্পু)

একটি বাটিতে ডিম নিয়ে বিট করে নরম ফোমের মতো বানাতে হবে। তারপর শ্যাম্পুর সাথে মিশিয়ে খুব ভালো করে ব্লেন্ড করতে হবে। এবার চুল কুসুম গরম পানিয়ে ভিজিয়ে নিয়ে তৈরি করা শ্যাম্পুর অর্ধেক নিয়ে মাথার তালুতে এবং চুলে ম্যাসেজ করতে হবে। এই শ্যাম্পুটির ফেনা খুব বেশি হবে না কিন্তু তাতে চিন্তিত হওয়ার কিছু নেই। এবার খুব ভালো করে চুল ধুয়ে বাকি অর্ধেকটা শ্যাম্পু একইভাবে আবার দিয়ে কুসুম গরম পানি দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলতে হবে কিন্তু এবার তা ৬০ সেকেন্ডের বেশি সময় রাখার প্রয়োজন নেই।

কিছু টিপস

১) যদি মনে করেন যে ডিমের গন্ধ খুব বেশি হচ্ছে তাহলে শ্যাম্পুতে কোন এসেন্সিয়াল অয়েল ব্যবহার করতে পারেন এক্ষেত্রে লেভেন্ডার অয়েল বা ভ্যানিলা এসেন্স খুব ভালো কাজ করে।

২) এই শ্যাম্পু ব্যবহারের সময় কোন ভাবেই গরম পানিতে চুল ধোয়া যাবে না, কুসুম গরম পানি ব্যবহার করতে হবে তা নাহলে ডিমের গন্ধ আর বেড়ে যাবে। প্রথমে কুসুম গরম পানিতে চুল ধুয়ে তারপর ঠাণ্ডা পানি ব্যবহার করতে হবে।

৩) যদি চুল খুব বেশি ক্ষতিগ্রস্থ থাকে তাহলে এই শ্যাম্পু ব্যবহারের পর ডিমের কন্ডিশনার ব্যবহার করতে পারেন। চুলের জন্য ডিমের তৈরি যেকোনো প্রাকৃতিক মাস্ক বা কন্ডিশনার ব্যবহার করতে পারেন।

তৈরি করে ফেলুন হারবাল শ্যাম্পু

যা যা লাগবে :

>রিঠা

>শিকাকাই

>আমলকি

যেভাবে তৈরি করবেন:

১। ৫০০ মিলিলিটার পানিতে ৬-৭টি শিকাকাই, ৫-৬টি রিঠা এবং কয়েকটি আমলকি সারারাত ভিজিয়ে রাখুন।

২। পরের দিন সকালে এই মিশ্রণটি চুলায় দিন। বলক আসলে চুলা নিভিয়ে দিন।

৩। এটি ঠান্ডা হয়ে গেলে ব্লেন্ডারে ব্লেন্ড করে নিন।

৪। এটি করার সময় খেয়াল করবেন উপাদানগুলো থেকে প্রচুর ফেনা তৈরি হয়েছে।

৫। এবার এই মিশ্রণটি শ্যাম্পুর মত ব্যবহার করুন।

৬। এত ঝামেলায় যেতে না চাইলে আমলকি, রিঠা এবং শিকাকাই সারা রাত ভিজিয়ে রাখুন, পরের দিন এই পানি দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন। এটিও শ্যাম্পুর মত কাজ করবে।

৭। রিঠা সারা রাত ভিজিয়ে রেখে পরের দিন সকালে সেটির পেস্ট তৈরি করে নিন। এর সাথে শিকাকাই গুঁড়ো ভাল করে মিশিয়ে পেস্ট তৈরি করুন। এটি চুলে ব্যবহার করুন, আপনি চাইলে এর সাথে শ্যাম্পু মিশিয়ে নিতে পারেন।

যেভাবে কাজ করে :

আমলকি চুল পড়া রোধ করে। এর সাথে বিভিন্ন ফ্যাটি অ্যাসিড চুলকে নরম, কোমল করে তোলে। এর ফ্ল্যাভোনয়েড, ভিটামিন, মিনারেল, প্রোটিন নতুন চুল গজাতে সাহায্য করে থাকে। রিঠা খুব ভাল পরিষ্কারক, ময়লা দূর করে ইনফেকশন রোধ করে থাকে। শিকাকাই চুলের জন্য খাদ্যস্বরূপ। এতে পিএচ লেভেল অনেক কম যার কারণে এটি চুলের প্রাকৃতিক তেল নষ্ট হতে দেয় না। এরসাথে এটি চুল মজবুত করে তোলে। এমনি খুশকি সমস্যাও সমাধান করে থাকে। হারবাল শ্যাম্পু ব্যবহার করুন আর পেয়ে যান সুন্দর স্বাস্থ্যজ্বল ঝলমলে চুল।

শসা ও লেবুর তৈরি শ্যাম্পু

প্রথমে শসা খোসা ছড়িয়ে নিন। তারপর একটি শসা ও একটি লেবু কুচিএ নিন। ব্লেন্ডর মেশিন এ শসা, লেবু দিয়ে ব্লেন্ড করে নিন। এবার এটি একটি বোতলে ভরে ভাল করে ঝাঁকিয়ে নিন। ব্যস তৈরি হয়ে গেল শসা–লেবুর শ্যম্পু। চুল পানি দিয়ে ভিজিয়ে নিয়ে তারপর শ্যাম্পু ব্যবহার করুন। হাত দিয়ে তালুতে কয়েক মিনিট ম্যাসাজ করুন।হাল্কা কুসুম গরম পানি দিয়ে চুল ধুয়ে ফেলুন। সপ্তাহে দুইবার এই শ্যাম্পু অবশ্যই ব্যবহার করুন। শসাতে প্রচুর পরিমাণ অ্যান্টি অক্সিডেন্ট এবং নানা পুষ্টিগুণ চুলে ভিতর থেকে পুষ্টি যুগিয়ে থাকে। এমনকি এই শ্যাম্পু চুলের পিএইচ ব্যালেন্স ধরে রাখতে সাহায্য করে। লেবু মাথার তালুর তেল, ময়লা পরিষ্কার করে থাকে।

নারকেল দুধের তৈরি শ্যাম্পু

এক কাপ নারকেল দুধ, ছয় টেবিল চামচ বাদাম তেল, এক কাপ নারকেল তেল সোপ এবং ২০ ফোঁটা এ্যাসেন্সিয়াল তেল। একটি বোতলে নারকেল দুধ, বাদাম তেল এবং নারকেল তেল সোপ মিশিয়ে নিন। এবার এটি কয়েক মিনিট ঝাঁকিয়ে নিন। আপনি চাইলে এতে এ্যাসেন্সিয়াল অয়েল মিশিয়ে নিতে পারেন। এই শ্যাম্পুটি চুল পরিষ্কার করতে ব্যবহার করুন। এই শ্যাম্পুটি ফ্রিজ ছাড়া এক মাস সংরক্ষণ করতে পারবেন। নারকেল তেল এবং এ্যাসেন্সিয়াল অয়েল ১/২ বিশুদ্ধ বেবি শ্যাম্পু, ১/৮ কাপ ডিসটিলেটেড ওয়াটার, ১/৪ কাপ গোলাপ জল, ২ টেবিল চামচ নারকেল তেল এবং ৫ ফোঁটা লেমন এ্যাসেন্সিয়াল ওয়েল ভাল করে মিশিয়ে নিন। এটি চুলে নিমিত ব্যবহার করুন। কেমিক্যাল মুক্ত এই শ্যম্পুটি চুলকে পরিষ্কার করে চুলকে করে তুলে সিল্কি ঝলমলে স্বাস্থ্যোজ্বল।

শ্যাম্পু তৈরি

এই প্রাকৃতিক শ্যাম্পু ব্যবহারের মাধ্যমে পেতে পারেন তাৎক্ষণিক ভাবে মসৃণ ও চকচকে চুল।

আয় tipscountbd.com থেকে

ভাল লাগলে সেয়ার করে বন্ধুদের জানান!

Leave a Reply

 
Theme Designed Bybody{border:6px solid orange; margin:6px;}